মারাগেছেন ৩০০ কেজির মাখন মিয়া

 

অস্বাভাবিক ওজন নিয়ে জীবনযুদ্ধে হেরে অবশেষে পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেন ৩০২ কেজি ওজনের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাখন মিয়া। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪০ বছর।

সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন মাখন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের দক্ষিণ মৌড়াইলের মিলন মিয়ার ছেলে।

মাখন মিয়ার প্রথমে ওজন স্বাভাবিক থাকলেও পরে ধীরে ধীরে তা বাড়তে থাকে। মৃত্যুকালে তার ওজন দাঁড়ায় ৩০২ কেজি। অস্বাভাবিক এই ওজন নিয়ে মানবেতর দিন কাটিয়েছেন মাখন। অবশেষে ওজনের কারণে জীবনযুদ্ধে হেরে গেলেন তিনি।

মাখনের পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২০ বছর বয়স পর্যন্ত স্বাভাবিকই ছিলেন তিনি। তারপর হঠাৎ বাড়তে থাকে তার শরীরের ওজন। শেষ পর্যন্ত তার ওজন ৩০২ কেজিতে থামেন। চিকিৎসাও করেছেন একাধিকবার,

কিন্তু অস্বাভাবিক ওজনের কারণে ব্যাহত হচ্ছিল চিকিৎসা। তার চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে গিয়ে এখন নিঃস্ব মাখনের পরিবার।

দুই সন্তান ও স্ত্রী নিয়ে খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকাই ছিল কষ্টকর। গত কয়েকদিন ধরে মাখন শ্বাসকষ্ট ও হৃদরোগ ভুগছিলেন।

২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন মাখনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,

সোমবার রাতে মাখন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার পরিবারের লোকজন। তার ওজনের কারণে হাসপাতালের ভেতরে জরুরি বিভাগে ঢোকানো সম্ভব হয়নি। হাসপাতালের গেইটেই তাকে চিকিৎসা দিতে হয়েছে।

তিনি বলেন, মাখনের শ্বাসকষ্ট সমস্যা ছিল। তার বুকে ব্যথা ছিল। হাসপাতালে নিয়ে আসার কিছুক্ষণ পর ইসিজি করে তার মৃত্যু নিশ্চিত হওয়া যায়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *